বুধবার, ১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:৫৪
শিরোনাম
Monday, February 1, 2016 4:47 am | আপডেটঃ February 04, 2016 4:39 AM
A- A A+ Print

মালয়েশিয়ায় ধরা খেলো ভুয়া ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা

নতুন সকাল ডেস্ক : মালয়েশিয়ায় পেতালিং জায়ায় ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বাংলাদেশি শ্রমিকদের হাতে ধরা পড়লো এক প্রতারক। ওই প্রতারক ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বিদেশি শ্রমিকদের হয়রানি করতো। তাকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন বাংলাদেশিরা।

শুক্রবার মালয়েশিয়া সময় রাত আটটায় আরা দামানসারা এলাকায় সেরি আরা এপার্টমেন্টে এক সহচরকে নিয়ে যায় ওই প্রতারক। সেখানে বাংলাদেশি শ্রমিকরা ভাড়া থাকতো। প্রতারকরা নিজেদের ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দেয়।

জেলা পুলিশের প্রধান সহযোগী কমিশনার মোহা. জানি চে দিন ন্যাশনাল স্ট্রেইট টাইমসকে বলেন, প্রতারক ওই শ্রমিকদের কাছে নিজেদের ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে তাদের পাসপোর্ট দেখাতে বলে।

'এসময় আরেক প্রতারক সঙ্গে থাকা ল্যাপটপটিতে বাংলাদেশিদের ট্রাভেল ডকুমেন্ট পরীক্ষা করার ভান ধরে। তবে ল্যাপটপে চার্জ নেই বলে বিদেশিদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অঘটনের অভিযোগ পাওয়া গেছে বলে ভয় দেখায়।'

জানি বলেন, এরপর প্রতারকরা তাদের কাছ থেকে ১ হাজার ৭০০ রিঙ্গিত এবং ৭টি মোবাইল ফোন নিয়ে চলে যেতে উদ্যত হয়।

তবে দুষ্কৃতকারীদের এ ধরনের আচরণে বাংলাদেশিদের সন্দেহ হয় এবং উল্টো জেরা করে। এক পর্যায়ে তারা মূল প্রতারককে আটকে ফেলে। এ সময় তার সহযোগী পালিয়ে যায়। বাংলাদেশিরা তাদের রিঙ্গিত এবং মোবাইল ফোন ফিরে পায়।

এপার্টমেন্টের নিরাপত্তা কর্মীর ফোন পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং অভিযুক্তকে থানা হাজতে নিয়ে আটকে রাখে বলে জানান জেলা পুলিশের প্রধান সহযোগী কমিশনার।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

মালয়েশিয়ায় ধরা খেলো ভুয়া ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা

Monday, February 1, 2016 4:47 am | আপডেটঃ February 04, 2016 4:39 AM

নতুন সকাল ডেস্ক : মালয়েশিয়ায় পেতালিং জায়ায় ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বাংলাদেশি শ্রমিকদের হাতে ধরা পড়লো এক প্রতারক। ওই প্রতারক ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে বিদেশি শ্রমিকদের হয়রানি করতো। তাকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন বাংলাদেশিরা।

শুক্রবার মালয়েশিয়া সময় রাত আটটায় আরা দামানসারা এলাকায় সেরি আরা এপার্টমেন্টে এক সহচরকে নিয়ে যায় ওই প্রতারক। সেখানে বাংলাদেশি শ্রমিকরা ভাড়া থাকতো। প্রতারকরা নিজেদের ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দেয়।

জেলা পুলিশের প্রধান সহযোগী কমিশনার মোহা. জানি চে দিন ন্যাশনাল স্ট্রেইট টাইমসকে বলেন, প্রতারক ওই শ্রমিকদের কাছে নিজেদের ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে তাদের পাসপোর্ট দেখাতে বলে।

‘এসময় আরেক প্রতারক সঙ্গে থাকা ল্যাপটপটিতে বাংলাদেশিদের ট্রাভেল ডকুমেন্ট পরীক্ষা করার ভান ধরে। তবে ল্যাপটপে চার্জ নেই বলে বিদেশিদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অঘটনের অভিযোগ পাওয়া গেছে বলে ভয় দেখায়।’

জানি বলেন, এরপর প্রতারকরা তাদের কাছ থেকে ১ হাজার ৭০০ রিঙ্গিত এবং ৭টি মোবাইল ফোন নিয়ে চলে যেতে উদ্যত হয়।

তবে দুষ্কৃতকারীদের এ ধরনের আচরণে বাংলাদেশিদের সন্দেহ হয় এবং উল্টো জেরা করে। এক পর্যায়ে তারা মূল প্রতারককে আটকে ফেলে। এ সময় তার সহযোগী পালিয়ে যায়। বাংলাদেশিরা তাদের রিঙ্গিত এবং মোবাইল ফোন ফিরে পায়।

এপার্টমেন্টের নিরাপত্তা কর্মীর ফোন পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং অভিযুক্তকে থানা হাজতে নিয়ে আটকে রাখে বলে জানান জেলা পুলিশের প্রধান সহযোগী কমিশনার।

Comments

comments

X