বুধবার, ১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং, ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:৩৪
শিরোনাম
Wednesday, May 3, 2017 2:14 am
A- A A+ Print

বিনিয়োগ প্রস্তাব কমে অর্ধেকে

চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে বিদেশি বিনিয়োগ প্রস্তাবে বড় ধসে মোট বিনিয়োগ প্রস্তাব আগের তিন মাসের তুলনায় প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে।

গত জানুয়ারি থেকে মার্চের হিসাব তুলে ধরে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিডায় ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চে মোট ৫১০টি শিল্প প্রতিষ্ঠান নিবন্ধিত হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ৩৭ হাজার ২১৭ কোটি টাকা (৩৭২১৭৪ দশমিক ৩৪৫ মিলিয়ন), যা আগের তিন মাসের (অক্টোবর-ডিসেম্বর ২০১৬) চেয়ে প্রায় ৩১ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা (৩১৫৫০১ দশমিক ৭৮৩ মিলিয়ন) কম।

বিগত অক্টোবর-ডিসেম্বর, ২০১৬ তিন মাসে বিডায় নিবন্ধিত ৪৮৭টি শিল্প ইউনিটের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৬৮ হাজার ৭০৭ কোটি টাকা (৬৮৭৬৭৬ দশমিক ১২৮ মিলিয়ন)। সে হিসাবে তিন মাসে আগের তিন মাসের তুলনায় বিনিয়োগ প্রস্তাব ৪৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ কমেছে।

তবে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে দেশীয় বিনিয়োগ প্রস্তাব ২৮ দশমিক ৮০ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে বিডা।

এই সময়ে সম্পূর্ণ স্থানীয় বিনিয়োগের জন্য নিবন্ধিত ৪৬৯টি শিল্প ইউনিটে প্রস্তাবিত অর্থের পরিমাণ প্রায় ২৯ হাজার ৬৮০ কোটি টাকা (২৯৬৮০১ দশমিক ৬৬২ মিলিয়ন) । ২০১৬ সালের শেষ প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) স্থানীয় বিনিয়োগের জন্য নিবন্ধিত ৪৪৪টি শিল্প ইউনিটে প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল প্রায় ২৩ হাজার ৪৪ কোটি টাকা (২৩০৪৪১ দশমিক ৩৮১ মিলিয়ন)। সে অনুযায়ী স্থানীয় বিনিয়োগ প্রস্তাব বেড়েছে ২৮ দশমিক ৮০ শতাংশ।

২০১৬ সালের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি থেকে মার্চ) তুলনায় চলতি বছরের একই সময়ে স্থানীয় বিনিয়োগ প্রস্তাব ৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ বেড়েছে।

অপরদিকে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে ২০টি শতভাগ বিদেশি ও ২১টি যৌথ বিনিয়োগের জন্য নিবন্ধিত শিল্পে অর্থাৎবৈদেশিক বিনিয়োগ সম্বলিত মোট ৪১টি নিবন্ধিত শিল্প ইউনিটের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ৭ হাজার ৫৩৭ কোটি টাকা (৭৫৩৭২ দশমিক ৬৮৩ মিলিয়ন)।

আর ২০১৬ সালের শেষ প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) তিন মাসে বৈদেশিক বিনিয়োগ সম্বলিত মোট ৪৩টি নিবন্ধিত শিল্পের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৪৫ হাজার ৭২৩ কোটি টাকা (৪৫৭২৩৪ দশমিক ৭৫ মিলিয়ন)।

এ বিষয়ে বিডার বিদেশি বিনিয়োগ বিভাগের সহকারী পরিচালক নুরুল হায়াত টুটুল বলেন, গত বছরের শেষ প্রান্তিকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বেশ কয়েকটি বড় বিদেশি বিনিয়োগ এসেছিল। সে কারণে তখন বিদেশি বিনিয়োগের আকার বড় হয়েছিল।

বিডার আরেক পরিচালক আরিফুল হক বলেন, বিদেশি বিনিয়োগ সব সময় যে বেশি হবে বিষয়টি সে রকম নয়। এটি সময়ে সময়ে বাড়ে কমে।

বিডা বলছে, আগের প্রান্তিকের তুলনায় চলতি প্রান্তিকে বিদেশি বিনিয়োগ প্রস্তাব কমলেও ২০১৬ সালের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় তা অনেক বেড়েছে।

“২০১৬ বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ তিন মাসের তুলনায় আলোচ্য তিন মাসে বিদেশি বিনিয়োগ প্রস্তাব ২০৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়েছে।”

সর্বশেষ প্রান্তিকে স্থানীয় এবং বৈদেশিক সম্মিলিতভাবে সার্ভিস শিল্পখাতে সর্বাধিক বিনিয়োগ প্রস্তাব পাওয়া গেছে, যা মোট বিনিয়োগ প্রস্তাবের ৩১ দশমিক ১৫ শতাংশ।

এছাড়া পর্যায়ক্রমিকভাবে কেমিকেল শিল্প খাতে ১৭ দশমিক ৫৮ শতাংশ, টেক্সটাইল শিল্প খাতে ১০ দশমিক ৫১ শতাংশ, ফুড অ্যান্ড এলাইড শিল্প খাতে ১২ দশমিক ৫২ শতাংশ, ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প খাতে ৪ দশমিক ৭৬ শতাংশ এবং অন্যান্য শিল্প খাতে ২৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ বিনিয়োগ প্রস্তাব পাওয়া গেছে বলে বিডার বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

আলোচ্য তিন মাসে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে নিবন্ধিত মোট ৫১০টি শিল্পে ৭৩ হাজার ৭৯৭ জনের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলেও আভাস দেয় বিডা।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

বিনিয়োগ প্রস্তাব কমে অর্ধেকে

Wednesday, May 3, 2017 2:14 am

চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে বিদেশি বিনিয়োগ প্রস্তাবে বড় ধসে মোট বিনিয়োগ প্রস্তাব আগের তিন মাসের তুলনায় প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে।

গত জানুয়ারি থেকে মার্চের হিসাব তুলে ধরে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিডায় ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চে মোট ৫১০টি শিল্প প্রতিষ্ঠান নিবন্ধিত হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ প্রায় ৩৭ হাজার ২১৭ কোটি টাকা (৩৭২১৭৪ দশমিক ৩৪৫ মিলিয়ন), যা আগের তিন মাসের (অক্টোবর-ডিসেম্বর ২০১৬) চেয়ে প্রায় ৩১ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা (৩১৫৫০১ দশমিক ৭৮৩ মিলিয়ন) কম।

বিগত অক্টোবর-ডিসেম্বর, ২০১৬ তিন মাসে বিডায় নিবন্ধিত ৪৮৭টি শিল্প ইউনিটের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৬৮ হাজার ৭০৭ কোটি টাকা (৬৮৭৬৭৬ দশমিক ১২৮ মিলিয়ন)। সে হিসাবে তিন মাসে আগের তিন মাসের তুলনায় বিনিয়োগ প্রস্তাব ৪৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ কমেছে।

তবে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে দেশীয় বিনিয়োগ প্রস্তাব ২৮ দশমিক ৮০ শতাংশ বেড়েছে বলে জানিয়েছে বিডা।

এই সময়ে সম্পূর্ণ স্থানীয় বিনিয়োগের জন্য নিবন্ধিত ৪৬৯টি শিল্প ইউনিটে প্রস্তাবিত অর্থের পরিমাণ প্রায় ২৯ হাজার ৬৮০ কোটি টাকা (২৯৬৮০১ দশমিক ৬৬২ মিলিয়ন) । ২০১৬ সালের শেষ প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) স্থানীয় বিনিয়োগের জন্য নিবন্ধিত ৪৪৪টি শিল্প ইউনিটে প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল প্রায় ২৩ হাজার ৪৪ কোটি টাকা (২৩০৪৪১ দশমিক ৩৮১ মিলিয়ন)। সে অনুযায়ী স্থানীয় বিনিয়োগ প্রস্তাব বেড়েছে ২৮ দশমিক ৮০ শতাংশ।

২০১৬ সালের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি থেকে মার্চ) তুলনায় চলতি বছরের একই সময়ে স্থানীয় বিনিয়োগ প্রস্তাব ৪ দশমিক ৮৯ শতাংশ বেড়েছে।

অপরদিকে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে ২০টি শতভাগ বিদেশি ও ২১টি যৌথ বিনিয়োগের জন্য নিবন্ধিত শিল্পে অর্থাৎবৈদেশিক বিনিয়োগ সম্বলিত মোট ৪১টি নিবন্ধিত শিল্প ইউনিটের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে প্রায় ৭ হাজার ৫৩৭ কোটি টাকা (৭৫৩৭২ দশমিক ৬৮৩ মিলিয়ন)।

আর ২০১৬ সালের শেষ প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর) তিন মাসে বৈদেশিক বিনিয়োগ সম্বলিত মোট ৪৩টি নিবন্ধিত শিল্পের প্রস্তাবিত বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৪৫ হাজার ৭২৩ কোটি টাকা (৪৫৭২৩৪ দশমিক ৭৫ মিলিয়ন)।

এ বিষয়ে বিডার বিদেশি বিনিয়োগ বিভাগের সহকারী পরিচালক নুরুল হায়াত টুটুল বলেন, গত বছরের শেষ প্রান্তিকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বেশ কয়েকটি বড় বিদেশি বিনিয়োগ এসেছিল। সে কারণে তখন বিদেশি বিনিয়োগের আকার বড় হয়েছিল।

বিডার আরেক পরিচালক আরিফুল হক বলেন, বিদেশি বিনিয়োগ সব সময় যে বেশি হবে বিষয়টি সে রকম নয়। এটি সময়ে সময়ে বাড়ে কমে।

বিডা বলছে, আগের প্রান্তিকের তুলনায় চলতি প্রান্তিকে বিদেশি বিনিয়োগ প্রস্তাব কমলেও ২০১৬ সালের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় তা অনেক বেড়েছে।

“২০১৬ বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ তিন মাসের তুলনায় আলোচ্য তিন মাসে বিদেশি বিনিয়োগ প্রস্তাব ২০৫ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়েছে।”

সর্বশেষ প্রান্তিকে স্থানীয় এবং বৈদেশিক সম্মিলিতভাবে সার্ভিস শিল্পখাতে সর্বাধিক বিনিয়োগ প্রস্তাব পাওয়া গেছে, যা মোট বিনিয়োগ প্রস্তাবের ৩১ দশমিক ১৫ শতাংশ।

এছাড়া পর্যায়ক্রমিকভাবে কেমিকেল শিল্প খাতে ১৭ দশমিক ৫৮ শতাংশ, টেক্সটাইল শিল্প খাতে ১০ দশমিক ৫১ শতাংশ, ফুড অ্যান্ড এলাইড শিল্প খাতে ১২ দশমিক ৫২ শতাংশ, ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প খাতে ৪ দশমিক ৭৬ শতাংশ এবং অন্যান্য শিল্প খাতে ২৩ দশমিক ৪৮ শতাংশ বিনিয়োগ প্রস্তাব পাওয়া গেছে বলে বিডার বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

আলোচ্য তিন মাসে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে নিবন্ধিত মোট ৫১০টি শিল্পে ৭৩ হাজার ৭৯৭ জনের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলেও আভাস দেয় বিডা।

Comments

comments

X