শনিবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং, ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:২২
শিরোনাম
Saturday, August 5, 2017 12:31 am
A- A A+ Print

পরবর্তী নির্বাচন সামনে রেখে আব্বাসির মন্ত্রিসভা

পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শহিদ খাকান আব্বাসি বড় আকারের মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন। গতকাল শুক্রবার মন্ত্রিসভা শপথ নেয়। আব্বাসির মন্ত্রিসভা নওয়াজ শরিফের মন্ত্রিসভার তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। এর সদস্য সংখ্যা ৪৭। তাঁদের মধ্যে ২৮ জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও ১৯ জন রাজ্য মন্ত্রী।

ধারণা করা হচ্ছে, আগামী বছর অনুষ্ঠেয় সাধারণ নির্বাচনের প্রতি নজর রেখেই আব্বাসি মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন। সুপ্রিম কোর্টের ফৌজদারি মামলা সত্ত্বেও ইসাক দার আবার অর্থমন্ত্রীর পদ পেয়েছেন। বরখাস্ত হওয়া প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের আরো এক ঘনিষ্ঠ সহযোগী খাজা আসিফও আব্বাসির মন্ত্রিসভায় ফিরেছেন। নওয়াজ শরিফের মন্ত্রিসভায় প্রতিরক্ষা ও শক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা আসিফ এসেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে। মন্ত্রিসভার গঠন ও আকার দেখে পাকিস্তানের লেখক ও বিশ্লেষক জাহিদ হুসেন বলেছেন, ‘এটা বিশাল আকারের মন্ত্রিসভা। সব কিছু দেখে মনে হচ্ছে আগামী নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখেই এটি করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্ট প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে অযোগ্য ঘোষণার পর তিনি পদত্যাগ করেন। কোর্টের রায়ে পদ হারালেও নওয়াজ শরিফ পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) নেতৃত্ব ধরে রেখেছেন এবং আব্বাসিকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ করেছেন। তবে অন্তর্বর্তী সময় পার হওয়ার পর আব্বাসি প্রধানমন্ত্রী থাকবেন না পদত্যাগ করবেন, সেই ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

উপনির্বাচনের মাধ্যমে নওয়াজ শরিফের ভাই শাহবাজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রীর পদের জন্য যোগ্য করে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে পিএমএল-এন। তবে এ ব্যাপারে দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা নিশ্চিত নন। কেননা পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে শাহবাজ শরিফ পদত্যাগ করলে সেখানে দলের অবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন তাঁরা। পাকিস্তানের নির্বাচনে জয়-পরাজয়ে পাঞ্জাব বড় ভূমিকা পালন করে। পাঞ্জাবে দেশের অর্ধেকেরও বেশি নাগরিকের বাস। সেখানকার জনগণই সরকার গঠনে বড় ভূমিকা পালন করে।

এদিকে শপথের পর সাবেক জ্বালানিমন্ত্রী আব্বাসি দক্ষতার সঙ্গে সরকার পরিচালনার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। সেই সঙ্গে এটা জানিয়েছেন, বড় সব সিদ্ধান্ত নওয়াজ শরিফের নিদের্শনায় নেওয়া হবে।

আব্বাসি তাঁর রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের বেশির ভাগ সময়ই নওয়াজ শরিফের সঙ্গে ছিলেন। সূত্র : রয়টার্স।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

পরবর্তী নির্বাচন সামনে রেখে আব্বাসির মন্ত্রিসভা

Saturday, August 5, 2017 12:31 am

পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শহিদ খাকান আব্বাসি বড় আকারের মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন। গতকাল শুক্রবার মন্ত্রিসভা শপথ নেয়। আব্বাসির মন্ত্রিসভা নওয়াজ শরিফের মন্ত্রিসভার তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। এর সদস্য সংখ্যা ৪৭। তাঁদের মধ্যে ২৮ জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও ১৯ জন রাজ্য মন্ত্রী।

ধারণা করা হচ্ছে, আগামী বছর অনুষ্ঠেয় সাধারণ নির্বাচনের প্রতি নজর রেখেই আব্বাসি মন্ত্রিসভা গঠন করেছেন। সুপ্রিম কোর্টের ফৌজদারি মামলা সত্ত্বেও ইসাক দার আবার অর্থমন্ত্রীর পদ পেয়েছেন। বরখাস্ত হওয়া প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের আরো এক ঘনিষ্ঠ সহযোগী খাজা আসিফও আব্বাসির মন্ত্রিসভায় ফিরেছেন। নওয়াজ শরিফের মন্ত্রিসভায় প্রতিরক্ষা ও শক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা আসিফ এসেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে। মন্ত্রিসভার গঠন ও আকার দেখে পাকিস্তানের লেখক ও বিশ্লেষক জাহিদ হুসেন বলেছেন, ‘এটা বিশাল আকারের মন্ত্রিসভা। সব কিছু দেখে মনে হচ্ছে আগামী নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখেই এটি করা হয়েছে।

গত সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্ট প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে অযোগ্য ঘোষণার পর তিনি পদত্যাগ করেন। কোর্টের রায়ে পদ হারালেও নওয়াজ শরিফ পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) নেতৃত্ব ধরে রেখেছেন এবং আব্বাসিকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ করেছেন। তবে অন্তর্বর্তী সময় পার হওয়ার পর আব্বাসি প্রধানমন্ত্রী থাকবেন না পদত্যাগ করবেন, সেই ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

উপনির্বাচনের মাধ্যমে নওয়াজ শরিফের ভাই শাহবাজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রীর পদের জন্য যোগ্য করে তোলার পরিকল্পনা নিয়েছে পিএমএল-এন। তবে এ ব্যাপারে দলের শীর্ষস্থানীয় নেতারা নিশ্চিত নন। কেননা পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে শাহবাজ শরিফ পদত্যাগ করলে সেখানে দলের অবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন তাঁরা। পাকিস্তানের নির্বাচনে জয়-পরাজয়ে পাঞ্জাব বড় ভূমিকা পালন করে। পাঞ্জাবে দেশের অর্ধেকেরও বেশি নাগরিকের বাস। সেখানকার জনগণই সরকার গঠনে বড় ভূমিকা পালন করে।

এদিকে শপথের পর সাবেক জ্বালানিমন্ত্রী আব্বাসি দক্ষতার সঙ্গে সরকার পরিচালনার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। সেই সঙ্গে এটা জানিয়েছেন, বড় সব সিদ্ধান্ত নওয়াজ শরিফের নিদের্শনায় নেওয়া হবে।

আব্বাসি তাঁর রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের বেশির ভাগ সময়ই নওয়াজ শরিফের সঙ্গে ছিলেন। সূত্র : রয়টার্স।

Comments

comments

X