সোমবার, ২১শে মে, ২০১৮ ইং, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, দুপুর ২:৫৪
শিরোনাম
Saturday, March 4, 2017 11:41 pm | আপডেটঃ March 04, 2017 11:42 PM
A- A A+ Print

ডাকছে বিছনাকান্দি

পিয়াইন নদের হাদার পার ঘাটে সারিবদ্ধ ইঞ্জিনচালিত নৌকা। সিএনজিচালিত অটোরিকশা থামতেই সেসব নৌকার কয়েকজন মাঝি আগ্রহ নিয়ে জানতে চাইলেন, ‘কোথায় যেতে চান?’ গন্তব্য বলার পর মধ্যবয়সী একজন ১ হাজার ৮০০ টাকায় রাজি হলেন। বিছনাকান্দির ডাকে সাড়া দিয়ে উঠে পড়লাম তাঁর নৌকায়।2c773a9b05fa1c30214549d055e9a22f-5

ধীরগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে ছোট্ট নৌকাটি। নিচের জলরাশি যেন স্বচ্ছ কাচ। নদীর দুই পারে গ্রাম আর সবুজের অপরূপ দৃশ্য থেকে চোখ সরে না। মিনিট দশেক এগোনোর পর চোখে পড়ে সারি সারি পাহাড়। পাহাড়ের রং কোথাও
সবুজ, আবার কোথাও গাঢ় নীল। সাদা মেঘ সেসব পাহাড়ের মাথা ছুঁয়ে উড়ে যাচ্ছে। এই দৃশ্যের ঘোর কাটতে না–কাটতেই চোখে পড়ে নদীর তলদেশ থেকে তীর অবধি বিস্তৃত পথের সারি। এ যেন পাথরের ভূস্বর্গ।

a39d006a850ec7d555a5549f22212344-4পানিতে মানুষের ছুটোছুটি দেখে দ্রুত নেমে পড়ি নৌকা থেকে। পা রাখামাত্রই শীতল স্পর্শে ভরে গেল মন। মাটিতে বিছানো পাথরগুলো একটু পিচ্ছিল হলেও দিব্যি হাঁটা যায়। পাথরের ওপর পা ডুবিয়ে হাঁটছেন শত শত পর্যটক। কোথাও গোড়ালিসমান পানি, কোথাও বা হাঁটু পানি। কিছু দূরে গলাসমান গভীরতাও পাওয়া গেল। সেখানে ডুব দিচ্ছেন অনেক পর্যটক। আয়নার মতো স্বচ্ছ পানিতে ডুব দিলে জলের ভেতরটাও উন্মোচিত হয়।

নদীর তীরে পাহাড়ের পাদদেশে ভ্রাম্যমাণ হোটেলে রয়েছে খাবারের ব্যবস্থা। এখানে দাঁড়িয়ে খেতে খেতে দেখতে পাবেন সীমান্তের ওপারে পাহাড়ের মাঝখানে ঝুলন্ত সেতুর দৃশ্য।
পিয়াইন নদের বিছনাকান্দির এই সৌন্দর্য উপভোগ করতে হলে যেতে হবে সিলেটের সীমান্তবর্তী উপজেলা গোয়াইনঘাটের রুস্তমপুর ইউনিয়নে।

যেভাবে যাবেন: চট্টগ্রাম থেকে ট্রেন বা বাসে করে যাওয়া যায় সিলেট। সিলেটের মূল শহর থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা বা মাইক্রোবাসে করে যেতে হবে হাদার পার ঘাটে। এতে সময় লাগে দুই ঘণ্টা। সেখান থেকে নৌকা নিয়ে ৩০ মিনিটে চলে যাওয়া যায় বিছনাকান্দিতে।

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

ডাকছে বিছনাকান্দি

Saturday, March 4, 2017 11:41 pm | আপডেটঃ March 04, 2017 11:42 PM

পিয়াইন নদের হাদার পার ঘাটে সারিবদ্ধ ইঞ্জিনচালিত নৌকা। সিএনজিচালিত অটোরিকশা থামতেই সেসব নৌকার কয়েকজন মাঝি আগ্রহ নিয়ে জানতে চাইলেন, ‘কোথায় যেতে চান?’ গন্তব্য বলার পর মধ্যবয়সী একজন ১ হাজার ৮০০ টাকায় রাজি হলেন। বিছনাকান্দির ডাকে সাড়া দিয়ে উঠে পড়লাম তাঁর নৌকায়।2c773a9b05fa1c30214549d055e9a22f-5

ধীরগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে ছোট্ট নৌকাটি। নিচের জলরাশি যেন স্বচ্ছ কাচ। নদীর দুই পারে গ্রাম আর সবুজের অপরূপ দৃশ্য থেকে চোখ সরে না। মিনিট দশেক এগোনোর পর চোখে পড়ে সারি সারি পাহাড়। পাহাড়ের রং কোথাও
সবুজ, আবার কোথাও গাঢ় নীল। সাদা মেঘ সেসব পাহাড়ের মাথা ছুঁয়ে উড়ে যাচ্ছে। এই দৃশ্যের ঘোর কাটতে না–কাটতেই চোখে পড়ে নদীর তলদেশ থেকে তীর অবধি বিস্তৃত পথের সারি। এ যেন পাথরের ভূস্বর্গ।

a39d006a850ec7d555a5549f22212344-4পানিতে মানুষের ছুটোছুটি দেখে দ্রুত নেমে পড়ি নৌকা থেকে। পা রাখামাত্রই শীতল স্পর্শে ভরে গেল মন। মাটিতে বিছানো পাথরগুলো একটু পিচ্ছিল হলেও দিব্যি হাঁটা যায়। পাথরের ওপর পা ডুবিয়ে হাঁটছেন শত শত পর্যটক। কোথাও গোড়ালিসমান পানি, কোথাও বা হাঁটু পানি। কিছু দূরে গলাসমান গভীরতাও পাওয়া গেল। সেখানে ডুব দিচ্ছেন অনেক পর্যটক। আয়নার মতো স্বচ্ছ পানিতে ডুব দিলে জলের ভেতরটাও উন্মোচিত হয়।

নদীর তীরে পাহাড়ের পাদদেশে ভ্রাম্যমাণ হোটেলে রয়েছে খাবারের ব্যবস্থা। এখানে দাঁড়িয়ে খেতে খেতে দেখতে পাবেন সীমান্তের ওপারে পাহাড়ের মাঝখানে ঝুলন্ত সেতুর দৃশ্য।
পিয়াইন নদের বিছনাকান্দির এই সৌন্দর্য উপভোগ করতে হলে যেতে হবে সিলেটের সীমান্তবর্তী উপজেলা গোয়াইনঘাটের রুস্তমপুর ইউনিয়নে।

যেভাবে যাবেন: চট্টগ্রাম থেকে ট্রেন বা বাসে করে যাওয়া যায় সিলেট। সিলেটের মূল শহর থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা বা মাইক্রোবাসে করে যেতে হবে হাদার পার ঘাটে। এতে সময় লাগে দুই ঘণ্টা। সেখান থেকে নৌকা নিয়ে ৩০ মিনিটে চলে যাওয়া যায় বিছনাকান্দিতে।

Comments

comments

X