শনিবার, ১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং, ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:২৬
শিরোনাম
Wednesday, May 4, 2016 9:40 am | আপডেটঃ May 04, 2016 9:41 AM
A- A A+ Print

অমলিন ঠাকুরবাড়ির সাজ

বাঙালি নারীর জাগরণের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে কলকাতার জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ীর নাম৷ শুধু শিক্ষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনেই নয়—ফ্যাশন এবং স্টাইলেও এই বাড়ির নারীরা ছিলেন অগ্রগামী৷ ঠাকুরবাড়ির এমন পাঁচ নারী জ্ঞানদানন্দিনী দেবী, স্বর্ণকুমারী দেবী, কাদম্বরী দেবী, ইন্দিরা দেবী চৌধুরানী ও সরলা দেবী চৌধুরানীকে নিয়ে আসছে পঁচিশে বৈশাখ উপলক্ষে নকশার এই আয়োজন৷ যাঁদের পোশাক—সেই পোশাক পরার ধরন, স্টাইল পরবর্তীকালে বাঙালি নারীর ফ্যাশনে জায়গা করে নিয়েছে। আজও সেই ধারা অমলিন।
‘বাইরে বেরোবার জন্যে জ্ঞানদানন্দিনী বাঙালি মেয়েদের দিলেন একটি রুচিশোভন সাজ৷ অবশ্য দেশি ধাঁচে শাড়ি পরা যে খারাপ তা নয়, তবে তাতে সৌষ্ঠব ছিল না৷ বোম্বাইয়ে গিয়ে তিনি প্রথমেই জবরজং ওরিয়েন্টাল ড্রেস বর্জন করে পারশি মেয়েদের শাড়ি পরার মিষ্টি ছিমছাম ধরনটি গ্রহণ করেন৷ নিজের পছন্দমতো একটু অদলবদল করে জ্ঞানদানন্দিনী এই পদ্ধতিটাকেই বজায় রাখলেন৷’(ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা-২২)
চিত্রা দেবের লেখা ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল বইটি থেকে জানা যায়, বাঙালি মেয়েদের সাজপোশাক নিয়ে সে যুগে তেমন ভাবনা-চিন্তা ছিল না কারও৷ মেয়েরা তেমন একটা ঘরের বাইরে বের হতেন না৷ বাড়িতে শুধু একটা শাড়ি জড়িয়ে রাখতেন গায়ে৷ শীতকালে তার ওপরে জড়িয়ে নিতেন চাদর৷ মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের দ্বিতীয় ছেলে সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্ত্রী ছিলেন জ্ঞানদানন্দিনী৷ কর্মসূত্রে সত্যেন্দ্রনাথ থাকতেন মুম্বাইতে (তখনকার বোম্বাই)৷ জ্ঞানদানন্দিনী সেখানে যাওয়ার আগে এক চিঠিতে সত্যেন্দ্রনাথ তাঁকে রুচিশীল পোশাক পরে আসার কথা জানান৷ সেই সময় জ্ঞানদানন্দিনী ফরাসি এক দোকান থেকে বানিয়ে নেন ওরিয়েন্টাল ড্রেস৷ ফ্যাশনেবল এই পোশাক পরে অস্বস্তি অনুভব করছিলেন তিনি৷ তখন থেকেই বাঙালি মেয়েদের সাজপোশাক নিয়ে ভাবতে শুরু করেন জ্ঞানদানন্দিনী৷ মুম্বাই থেকেই জ্ঞানদানন্দিনী শিখে এসেছিলেন আধুনিক কায়দায় শাড়ি পরার ঢং৷ কুঁচি দিয়ে শাড়ি পরার এই কায়দাটি ঠাকুরবাড়ির মেয়েরা স্বচ্ছন্দেই গ্রহণ করেন৷ পরবর্তীতে শাড়ি পরার ধরনে কিছুটা পরিবর্তন এলেও এখনো জ্ঞানদানন্দিনীর বাঁ দিকে আঁচল রাখার ঢং বদলায়নি এতটুকুও৷
দীর্ঘদিন ধরে রবীন্দ্রচর্চা করছেন সাংবাদিক ও লেখক আবুল মোমেন৷ তিনি জানালেন, সে সময় আর্দ্র আবহাওয়ার কারণে এই অঞ্চলে মানুষের মধ্যে ছিল সেলাই ছাড়া কাপড় পরার চল৷ শরীরে বাতাস চলাচলের সুবিধার জন্য এ ধরনের কাপড় পরা হতো৷ বাঙালি সমাজে ঠাকুরবাড়ির মেয়েরাই প্রথম ঘরের বাইরে কাজে যেতে শুরু করেন৷ চলাফেলার স্বাচ্ছন্দ্যের পাশাপাশি রুচিশীলতার বিষয়টি বিবেচনা করে তাঁরা শাড়ি পরার ধরনে আনেন নতুনত্ব৷
শুধু শাড়ি পরার ধরনেই নয়, জ্ঞানদানন্দিনী শুরু করলেন শাড়ির সঙ্গে জ্যাকেট পরার প্রচলন৷ নানা ধরনের লেস জুড়ে দেওয়া হতো এই জ্যাকেটে৷ রবীন্দ্রনাথের ভাষায়, ‘বিলিতি দরজির দোকান থেকে যত সব ছাঁটাকাটা নানা রঙের রেশমের ফালির সঙ্গে নেটের টুকরো আর খেলো লেস মিলিয়ে মেয়েদের জামা বানানো হতো৷’ শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে পরা এই জামা বা জ্যাকেটই পরবর্তী সময়ে ব্লাউজ নামে পরিচিত হয়৷
বাংলা সাহিত্যের প্রথম সার্থক লেখিকা ছিলেন স্বর্ণকুমারী দেবী৷ মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের দশম এই কন্যার সঙ্গে জ্ঞানদানন্দিনীর বেশ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল৷ সব কাজেই স্বর্ণকুমারী সহযোগিতা করতেন তাঁকে৷ জ্ঞানদানন্দিনীর মতো স্বর্ণকুমারীর জীবনযাপনে ছিল রুচিশীলতার ছোঁয়া৷ (সূত্র: ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা: ৩০)
শুধু ঠাকুরবাড়ির নয়, সেই সময় বাঙালি মেয়েদের জীবনযাপনে বেশ পরিবর্তনের জোয়ার এনেছিলেন এ দুই নারী৷

তবে শুধু মেয়েদের জীবনযাপনেই নয়, ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহলের প্রতিটি কোণ নান্দনিক করে তুলতে চেয়েছিলেন কাদম্বরী দেবী৷ মাত্র আট বছর বয়সে ঠাকুরবাড়িতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চতুর্থ ভাই জ্যোতিরিন্দ্রনাথ ঠাকুরের বউ হয়ে এলেন কাদম্বরী দেবী৷ গৃহসজ্জার দিকে ছিল তাঁর বিশেষ দৃষ্টি৷ ঠাকুরবাড়ির ছাদে তিনি গড়ে তোলেন ফুলের বাগান৷ নাম দেন নন্দনকানন৷ এখানেই বসত গানের আসর৷ ‘মাদুরের ওপর তাকিয়া, রুপোর রেকাবে ভিজে রুমালের ওপর বেলফুলের গোড়ের মালা, এক গ্লাস বরফ জল, বাটা ভরতি ছাঁচি পান সাজানো থাকত৷’ (ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা:৪৯)।
জ্যোতিরিন্দ্র সেখানে বেহালা বাজাতেন। আর রবীন্দ্রনাথ ধরতেন চড়া সুরের গান৷ ‘হু হু করে দক্ষিণের বাতাস উঠত দূর সমুদ্র থেকে৷ কিশোর রবীন্দ্রনাথের রোম্যান্টিক সৌন্দর্য চেতনাকে জাগাবার জন্য এই পরিবেশ, এই সৌন্দর্যদৃষ্টি ও কল্পনার একান্ত প্রয়োজন ছিল৷’ (ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা:৪৯)।
এ প্রসঙ্গে আবুল মোমেন বললেন, রবীন্দ্রনাথের মানসপটে কাদম্বরী বুনে দিয়েছিলেন সৌন্দর্যবোধের বীজ৷ কাদম্বরীর নাগরিক রুচিশীলতা মুগ্ধ করত কিশোর রবীন্দ্রনাথকে৷
মা জ্ঞানদানন্দিনীর মতো মেয়ে ইন্দিরা দেবীর উপস্থিতিও চারিদিক আলোকিত করে তুলত৷ রবীন্দ্রসংগীতের ক্ষেত্রে ইন্দিরার ছিল বিশেষ অবদান৷ ইন্দিরার ব্যক্তিত্বে ছিল কমল হিরের দীপ্তি৷ যার ছাপ তাঁর সাজসজ্জা-বাক্যবিনাস-ঘর সাজানো থেকে শুরু করে শান্তিনিকেতনের আশ্রম কুটিরে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছিল৷ প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য শিক্ষায় শিক্ষিত আদর্শ জীবনটিকে তিনি তুলে ধরেছিলেন সবার সামনে৷ (সূত্র: ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল)
স্বদেশি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন স্বর্ণকুমারীর মেয়ে সরলা দেবী৷ পোশাক-আশাকেও ছিল তার রেশ৷ কোনো উৎসবে যেতে হলে সরলা স্বদেশি বেশভূষায় সেজে, ‘লক্ষ্মীর ভান্ডার’ পরিচালনা উপলক্ষে পাওয়া স্বদেশি মেডেলটি দিয়ে তৈরি করা ব্রোচ কাঁধের কাছে লাগিয়ে যেতেন৷ অপরূপ বেশে তাঁর অনুপম লাবণ্য সবাইকে মুগ্ধ করত৷ দেশের লোকের মনে স্বদেশিয়ানা আনার জন্য বাঙালি মেয়েদের মধ্যে টিপ পরা, আলতা পরার চল শুরু করেন সরলা দেবী৷
সামাজিক বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে সেই সময়ে ঠাকুরবাড়ির মেয়েরা দেখিয়েছিলেন আলোর পথ৷ রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা জানালেন, সমস্ত বাঙালি মেয়ের মনেই এই বাড়ির মেয়েরা বুনে দিয়েছিলেন সাহসিকতার বীজ৷ সৃষ্টি করেছিলেন বাঙালি মেয়েদের নিজস্ব জীবনধারা, যা নিজস্ব সীমার গণ্ডি ছাড়িয়ে ছড়িয়ে গেছে বিশ্বময়৷

Comments

Comments!

 Natunsokal.com

অমলিন ঠাকুরবাড়ির সাজ

Wednesday, May 4, 2016 9:40 am | আপডেটঃ May 04, 2016 9:41 AM

বাঙালি নারীর জাগরণের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে কলকাতার জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ীর নাম৷ শুধু শিক্ষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গনেই নয়—ফ্যাশন এবং স্টাইলেও এই বাড়ির নারীরা ছিলেন অগ্রগামী৷ ঠাকুরবাড়ির এমন পাঁচ নারী জ্ঞানদানন্দিনী দেবী, স্বর্ণকুমারী দেবী, কাদম্বরী দেবী, ইন্দিরা দেবী চৌধুরানী ও সরলা দেবী চৌধুরানীকে নিয়ে আসছে পঁচিশে বৈশাখ উপলক্ষে নকশার এই আয়োজন৷ যাঁদের পোশাক—সেই পোশাক পরার ধরন, স্টাইল পরবর্তীকালে বাঙালি নারীর ফ্যাশনে জায়গা করে নিয়েছে। আজও সেই ধারা অমলিন।
‘বাইরে বেরোবার জন্যে জ্ঞানদানন্দিনী বাঙালি মেয়েদের দিলেন একটি রুচিশোভন সাজ৷ অবশ্য দেশি ধাঁচে শাড়ি পরা যে খারাপ তা নয়, তবে তাতে সৌষ্ঠব ছিল না৷ বোম্বাইয়ে গিয়ে তিনি প্রথমেই জবরজং ওরিয়েন্টাল ড্রেস বর্জন করে পারশি মেয়েদের শাড়ি পরার মিষ্টি ছিমছাম ধরনটি গ্রহণ করেন৷ নিজের পছন্দমতো একটু অদলবদল করে জ্ঞানদানন্দিনী এই পদ্ধতিটাকেই বজায় রাখলেন৷’(ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা-২২)
চিত্রা দেবের লেখা ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল বইটি থেকে জানা যায়, বাঙালি মেয়েদের সাজপোশাক নিয়ে সে যুগে তেমন ভাবনা-চিন্তা ছিল না কারও৷ মেয়েরা তেমন একটা ঘরের বাইরে বের হতেন না৷ বাড়িতে শুধু একটা শাড়ি জড়িয়ে রাখতেন গায়ে৷ শীতকালে তার ওপরে জড়িয়ে নিতেন চাদর৷ মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের দ্বিতীয় ছেলে সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্ত্রী ছিলেন জ্ঞানদানন্দিনী৷ কর্মসূত্রে সত্যেন্দ্রনাথ থাকতেন মুম্বাইতে (তখনকার বোম্বাই)৷ জ্ঞানদানন্দিনী সেখানে যাওয়ার আগে এক চিঠিতে সত্যেন্দ্রনাথ তাঁকে রুচিশীল পোশাক পরে আসার কথা জানান৷ সেই সময় জ্ঞানদানন্দিনী ফরাসি এক দোকান থেকে বানিয়ে নেন ওরিয়েন্টাল ড্রেস৷ ফ্যাশনেবল এই পোশাক পরে অস্বস্তি অনুভব করছিলেন তিনি৷ তখন থেকেই বাঙালি মেয়েদের সাজপোশাক নিয়ে ভাবতে শুরু করেন জ্ঞানদানন্দিনী৷ মুম্বাই থেকেই জ্ঞানদানন্দিনী শিখে এসেছিলেন আধুনিক কায়দায় শাড়ি পরার ঢং৷ কুঁচি দিয়ে শাড়ি পরার এই কায়দাটি ঠাকুরবাড়ির মেয়েরা স্বচ্ছন্দেই গ্রহণ করেন৷ পরবর্তীতে শাড়ি পরার ধরনে কিছুটা পরিবর্তন এলেও এখনো জ্ঞানদানন্দিনীর বাঁ দিকে আঁচল রাখার ঢং বদলায়নি এতটুকুও৷
দীর্ঘদিন ধরে রবীন্দ্রচর্চা করছেন সাংবাদিক ও লেখক আবুল মোমেন৷ তিনি জানালেন, সে সময় আর্দ্র আবহাওয়ার কারণে এই অঞ্চলে মানুষের মধ্যে ছিল সেলাই ছাড়া কাপড় পরার চল৷ শরীরে বাতাস চলাচলের সুবিধার জন্য এ ধরনের কাপড় পরা হতো৷ বাঙালি সমাজে ঠাকুরবাড়ির মেয়েরাই প্রথম ঘরের বাইরে কাজে যেতে শুরু করেন৷ চলাফেলার স্বাচ্ছন্দ্যের পাশাপাশি রুচিশীলতার বিষয়টি বিবেচনা করে তাঁরা শাড়ি পরার ধরনে আনেন নতুনত্ব৷
শুধু শাড়ি পরার ধরনেই নয়, জ্ঞানদানন্দিনী শুরু করলেন শাড়ির সঙ্গে জ্যাকেট পরার প্রচলন৷ নানা ধরনের লেস জুড়ে দেওয়া হতো এই জ্যাকেটে৷ রবীন্দ্রনাথের ভাষায়, ‘বিলিতি দরজির দোকান থেকে যত সব ছাঁটাকাটা নানা রঙের রেশমের ফালির সঙ্গে নেটের টুকরো আর খেলো লেস মিলিয়ে মেয়েদের জামা বানানো হতো৷’ শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে পরা এই জামা বা জ্যাকেটই পরবর্তী সময়ে ব্লাউজ নামে পরিচিত হয়৷
বাংলা সাহিত্যের প্রথম সার্থক লেখিকা ছিলেন স্বর্ণকুমারী দেবী৷ মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের দশম এই কন্যার সঙ্গে জ্ঞানদানন্দিনীর বেশ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল৷ সব কাজেই স্বর্ণকুমারী সহযোগিতা করতেন তাঁকে৷ জ্ঞানদানন্দিনীর মতো স্বর্ণকুমারীর জীবনযাপনে ছিল রুচিশীলতার ছোঁয়া৷ (সূত্র: ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা: ৩০)
শুধু ঠাকুরবাড়ির নয়, সেই সময় বাঙালি মেয়েদের জীবনযাপনে বেশ পরিবর্তনের জোয়ার এনেছিলেন এ দুই নারী৷

তবে শুধু মেয়েদের জীবনযাপনেই নয়, ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহলের প্রতিটি কোণ নান্দনিক করে তুলতে চেয়েছিলেন কাদম্বরী দেবী৷ মাত্র আট বছর বয়সে ঠাকুরবাড়িতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের চতুর্থ ভাই জ্যোতিরিন্দ্রনাথ ঠাকুরের বউ হয়ে এলেন কাদম্বরী দেবী৷ গৃহসজ্জার দিকে ছিল তাঁর বিশেষ দৃষ্টি৷ ঠাকুরবাড়ির ছাদে তিনি গড়ে তোলেন ফুলের বাগান৷ নাম দেন নন্দনকানন৷ এখানেই বসত গানের আসর৷ ‘মাদুরের ওপর তাকিয়া, রুপোর রেকাবে ভিজে রুমালের ওপর বেলফুলের গোড়ের মালা, এক গ্লাস বরফ জল, বাটা ভরতি ছাঁচি পান সাজানো থাকত৷’ (ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা:৪৯)।
জ্যোতিরিন্দ্র সেখানে বেহালা বাজাতেন। আর রবীন্দ্রনাথ ধরতেন চড়া সুরের গান৷ ‘হু হু করে দক্ষিণের বাতাস উঠত দূর সমুদ্র থেকে৷ কিশোর রবীন্দ্রনাথের রোম্যান্টিক সৌন্দর্য চেতনাকে জাগাবার জন্য এই পরিবেশ, এই সৌন্দর্যদৃষ্টি ও কল্পনার একান্ত প্রয়োজন ছিল৷’ (ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল, পৃষ্ঠা:৪৯)।
এ প্রসঙ্গে আবুল মোমেন বললেন, রবীন্দ্রনাথের মানসপটে কাদম্বরী বুনে দিয়েছিলেন সৌন্দর্যবোধের বীজ৷ কাদম্বরীর নাগরিক রুচিশীলতা মুগ্ধ করত কিশোর রবীন্দ্রনাথকে৷
মা জ্ঞানদানন্দিনীর মতো মেয়ে ইন্দিরা দেবীর উপস্থিতিও চারিদিক আলোকিত করে তুলত৷ রবীন্দ্রসংগীতের ক্ষেত্রে ইন্দিরার ছিল বিশেষ অবদান৷ ইন্দিরার ব্যক্তিত্বে ছিল কমল হিরের দীপ্তি৷ যার ছাপ তাঁর সাজসজ্জা-বাক্যবিনাস-ঘর সাজানো থেকে শুরু করে শান্তিনিকেতনের আশ্রম কুটিরে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছিল৷ প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য শিক্ষায় শিক্ষিত আদর্শ জীবনটিকে তিনি তুলে ধরেছিলেন সবার সামনে৷ (সূত্র: ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল)
স্বদেশি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন স্বর্ণকুমারীর মেয়ে সরলা দেবী৷ পোশাক-আশাকেও ছিল তার রেশ৷ কোনো উৎসবে যেতে হলে সরলা স্বদেশি বেশভূষায় সেজে, ‘লক্ষ্মীর ভান্ডার’ পরিচালনা উপলক্ষে পাওয়া স্বদেশি মেডেলটি দিয়ে তৈরি করা ব্রোচ কাঁধের কাছে লাগিয়ে যেতেন৷ অপরূপ বেশে তাঁর অনুপম লাবণ্য সবাইকে মুগ্ধ করত৷ দেশের লোকের মনে স্বদেশিয়ানা আনার জন্য বাঙালি মেয়েদের মধ্যে টিপ পরা, আলতা পরার চল শুরু করেন সরলা দেবী৷
সামাজিক বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে সেই সময়ে ঠাকুরবাড়ির মেয়েরা দেখিয়েছিলেন আলোর পথ৷ রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা জানালেন, সমস্ত বাঙালি মেয়ের মনেই এই বাড়ির মেয়েরা বুনে দিয়েছিলেন সাহসিকতার বীজ৷ সৃষ্টি করেছিলেন বাঙালি মেয়েদের নিজস্ব জীবনধারা, যা নিজস্ব সীমার গণ্ডি ছাড়িয়ে ছড়িয়ে গেছে বিশ্বময়৷

Comments

comments

X